Breaking »

মহেশপুরে জনতা ব্যাংকে ম্যানেজারের কারনে ভাতা ভোগীরা হয়রানির শিকার

অসীম মোদক,মহেশপুরঃ
ঝিনাইদহের মহেশপুর জনতা ব্যাংক ব্যবস্থাপকের খামখেয়ালিপনার কারনে বয়স্ক ভাতার টাকা উত্তোলন করতে এসে হয়রানির শিকার হচ্ছে গ্রাহকরা । গত বৃহস্পতিবার মহেশপুর উপজেলা ফতেপুর ইউনিয়ন পরিষদে বয়স্ক ভাতার টাকা বিতরণ কালে অসুস্থ ব্যক্তিদের সন্তান বা বোন টাকা উত্তোলন করতে আসলে এ হয়রানির শিকার হয়েছেন বলে ভূক্তভোগীরা জানান।বয়স্ক ভাতার টাকা উত্তোলন কারীদের মধ্যে কেহ অসুস্থ থাকলে সংম্লীষ্ট পৌর এলাকার মেয়র বা কাউন্সিলর,ইউনিয়ন এলাকার ইউপি চেয়ারম্যান বা ইউপি সদস্যদের প্রত্যায়ন পত্র দেখে ব্যাংক কর্তৃপক্ষের ভাতা প্রদানের কথা। কিন্তু কয়েক জন অসুস্থ বয়স্ক ব্যক্তিদের স্বজনরা মহেশপুর জনতা ব্যাংক ব্যাবস্থাপকের খাম খেয়ালিপনার কারনে ইউপি চেয়ারম্যান বা ইউপি সদস্যদের প্রত্যায়ন পত্র দেখালেও তাদেরকে বয়স্ক ভাতার টাকা না দিয়ে তাদের সাথে খারাপ আচরন করেছেন।
পুরন্দপুর এলাকার বয়স্ক অন্ধ জহরা বেগম। তার অসুস্থতার কারনে ফতেপুর ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলামের কাছ থেকে একটি প্রত্যায়ন পত্র নিয়ে বোনের টাকা উত্তোলন করতে আসেন জুলেখা বেগম। তাকে টাকা না দিয়ে ১২ তারিখে টাকা দেওয়া হবে বলে ভাগিয়ে দেন।
ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান জানান, এলাকার অনেক বয়স্ক মানুষ আছে অসুস্থার কারনে ইউনিয়ন পরিষদে টাকা নিতে আসতে পারেনি। পরিষদের চেয়ারম্যান তাদের ছেলে,মেয়ে ও ভাই-বোনদেরকে প্রত্যায়ন পত্র দিয়েছেন। কিন্তু তাতেও কোন লাভ হয়নি। ব্যাংক ব্যবস্থাপকের খামখেয়ালির কারনে তাদেরকে ফিরে যেতে হয়েছে।
ফতেপুর ইউপি চেয়ারম্যান জানান, আমার এলাকায় প্রায় ৮০০ বয়স্ক ভাতার বই ধারী মানুষ রয়েছে। এর মধ্যে অনেকে অসুস্থ অবস্থায় বাড়ীতে রয়েছে। যারা একেবারেই অসুস্থ আমি শুধু তাদের পরিবারের সদস্যদেরকে প্রত্যায়ন পত্র দিয়েছি। কিন্তু তার পরও তাদেরকে ভাতার টাকা দেওয়া হয়নি। তিনি আরো জানান,শুধু মহেশপুর জনতা ব্যাংক ব্যবস্থাপক শাহীনুর ইসলামের খামখেয়ালিপনার কারনে হয়রানির শিকার হচ্ছে এলাকার বয়স্ক ভাতা ভোগীরা।
মহেশপুর জনতা ব্যাংকের ক্যাশ কর্মকর্তা আহসান উল্লা জানান, আমরা শুধু বয়স্ক ভাতার বই ধারীদেরকে টাকা দিয়েছি। যারা অসুস্থ আছেন তাদের স্বজনদেরকে কোন টাকা দেইনি। আমরা যা করেছি আমাদের ম্যানেজার স্যারের নির্দেশে করেছি।
মহেশপুর জনতা ব্যাংক ব্যবস্থাপক শাহীনুর ইসলাম জানান, বয়স্ক ব্যক্তিদের ভাতার টাকা ব্যাংকে এসে নেওয়ার কথা। শুধু আমি বয়স্ক মানুষের কথা চিন্তা করে আমার অফিসারদের পরিষদে গিয়ে টাকা দেওয়ার কথা বলেছি। আর অসুস্থদেরন তাদের টাকা ১২ তারিখে দেওয়ার কথা বলেছি।
তারপরও চেয়ারম্যান সাহেব ও ইউপি সদস্যরা প্রত্যায়ন দিয়ে বলেছেন অসুস্থ ব্যক্তিদের টাকা আজকেই দিতে হবে। আমি তা দেয়নি।

 রিপোর্ট »শুক্রবার, ৮ মে , ২০২০. সময়-৪:৫৬ pm | বাংলা- 25 Boishakh 1427
রিপোর্ট শেয়ার করুন  »
Share on Facebook!Digg this!Add to del.icio.us!Stumble this!Add to Techorati!Seed Newsvine!Reddit!
Editor: Abul Hossain Liton, DhakaOffice:Nahar Monzil,Box Nagar, Dhemra, Dhaka.Head Office:Thana Road,Moheshpur,Jhenaidah.Copyright © 2011 » All rights reserved http/shesherkhobor.com, mob: 8801711245104. Email: shesherkhobor@gmail.com 
☼ Provided By  websbd.net  » System  Designed by HELAL .
GO TOP