Breaking »

Warning: include(/home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single-sidebar.php): failed to open stream: No such file or directory in /home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single.php(2) : eval()'d code(1) : eval()'d code on line 2

Warning: include(): Failed opening '/home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single-sidebar.php' for inclusion (include_path='.:/usr/lib/php:/usr/local/lib/php') in /home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single.php(2) : eval()'d code(1) : eval()'d code on line 2

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে বেনাপোলে বসেছিল দু’বাংলার মিলন মেলা

pic---[1ইয়ানুর রহমান, শার্শা (যশোর)ঃ ২১ ফেব্রুয়ারী। প্রানের টানে ,ভাষার টানে দু’বাংলার মানুষ একাকার হয়ে গিয়েছিল ,মিলেছিল দু’বাংলার মোহনায় । আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে বৃহস্পতিবার যশোরের বেনাপোল নোম্যানসল্যান্ড এলাকায় বসেছিল দু’বাংলার মিলন মেলা। এপার বাংলা-ওপার বাংলার রাজনীতিক, কবি সাহিত্যিক, শিল্পীরা অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহন করে। উপচে পড়া ভিড় নেই মিলনমেলায়। তাই বলে নি:স্প্রান ছিল না এবারের মিলনমেলা। ভোর থেকে মূলমঞ্চের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান মাতিয়ে রাখে আসা দর্শনার্থীদের।কবি সাহিত্যিকদের কবিতা আবৃতি আরো প্রানবন্ত করে তোলে মেলা প্রাঙ্গন। ২০০২সাল থেকে দু’বাংলার সীমান্ত ঘেষা সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো যৌথভাবে ২১ ফেব্রুয়ারী পালন করে আসছে।  এবার দু’বাংলার ২০টি সংগঠন মাতৃভাষা দিবস পালনে অংশ নেয়।
বাঙ্গালিদের প্রান থেকে উংসারিত হয় যে অবিনাশী শোক সংগীত ‘‘আমার ভায়ের রক্তে রাঙ্গানো একুশে ফেব্রুয়ারী / আমি কি ভুলিতে পারি’’। যেন দু’বাংলার সমস্ত অস্তিত্বজুড়ে অনুরনিত হচ্ছিল এই ধ্বনি।আর তাইতো বাংলা ভাষাভাষী দু’বাংলার মানুষের মিলনমেলা বসেছিল বেনাপোল-পেট্রাপোলে । ছিল না কোন বাধা।সীমানা পেরিয়ে ব্যাকুল পিয়াসে ছুটে এসেছে সহমর্মী হতে। কিছু সময়ের জন্য মিলেমিশে একাকার হয়েছে দু’বাংলা। ‘‘একই আকাশ একই বাতাস / এক হৃদয়ে একই তো শ্বাস’’ । ভূ-পেনের এই গান সত্যি হয়ে চোখ মেলেছিল যেন বাংলার চোখে । ভাষা দিবসের এই অনুষ্ঠানকে ঘিরে বৃহস্পতিবার বেনাপোল-পেট্রাপোল সেজে ছিল অন্য রকম সাজে। ফুল আর দু’দেশের পতাকায় ছেয়ে গিয়েছিল দু’সীমান্ত। ক’ঘন্টার জন্য দূর হয়ে গিয়েছিল সব ব্যবধান ।তার কাটার বেড়া মাড়িয়ে ওপার বাংলার  রাজনীতিক, কবি সাহিত্যিক, সাংবাদিক, শিল্পী, সাংস্কৃতিক কর্মীরা দাড়িয়ে ছিল একই ভুখন্ডে ।
ঘড়ির কাটায় তখন সকাল ১০  টা বেনাপোল চেকপোষ্ট পেরিয়ে নোম্যান্সল্যান্ডে দাড়িয়ে ৮৫ যশোর-১ এর সংসদ সদস্য শেখ আফিল উদ্দিন, কবি সাহিত্যিক সাংবাদিক হাসান হাফিজ,  জেলা প্রশাসক মোস্তাফিজুর রহমান, পুলিশ সুপার জয়দেব ভদ্র, শার্শা উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি সিরাজুল হক মঞ্জুসহ রাজনীতিক, কবি সাহিত্যিক, সাংবাদিক, শিল্পী, সাংস্কৃতিক কর্মীরা ওপার বাংলার খাদ্য ও সরবরাহ দপ্তরের মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক, ত্রান ও উদ্বাস্ত দপ্তরের মন্ত্রী মনজুল কৃঞ্চ ঠাকুর, পশ্চিম বাংলার বিধান সভার বিধায়ক বিশ্বজিত দাস, বিধায়ক সুরজিত কুমার বিশ্বাস , বিধায়ক গোপাল শেঠ, বিধায়ক নির্মল ঘোষ, বনগা পৌরসভার মেয়র জোসনা আঢ্য,  শিল্পী ইন্দ্রানী সেন, শিল্পী ইন্দ্রজিৎ সেনসহ অতিথীদেরকে ফুল দিয়ে বরন করে নেন।
এরপর দু’বাংলার অতিথী সহ বিভিন্ন সংগঠন ভারত বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক সীমানা পেরিয়ে নোম্যান্সল্যান্ড এলাকায় অস্হায়ী ভাবে নির্মিত শহীদ বেদিতে ফুল দিয়ে শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান । পরে অতিথীরা নোম্যান্সল্যান্ড পেরিয়ে বেনাপোল চেকপোষ্ট ও ভারতের পেট্রাপোলে আয়োজিত অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহন করেন ।
২০০২ সাল থেকে  ‘ভারত বাংলাদেশ গঙ্গা পদ্মা ভাষা ও মৈত্রী সমিতি’ যৌথভাবে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে আসছে তবে এবার এপারে বেনাপোল আন্তর্জাতি মাতৃভাষা উদযাপন পরিষ‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌ পৌরসভা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে । সীমান্তের জিরো পয়েন্টের দুপারে তৈরি হয় দুটি মঞ্চ । পশ্চিমবঙ্গের শিল্পীরা এপারের মঞ্চে এসে এবং বাংলাদেশের শিল্পীরা ভারতের মঞ্চে যেয়ে গান , নৃত্য ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করেন  ।
আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন পরিষদের সদস্য সচিব সিরাজুল ইসলাম সিরাজ  বলেন-২০০২সাল থেকে দু’বাংলার সীমান্ত ঘেষা সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো যৌথভাবে ২১ ফেব্রুয়ারী পালন করে আসছে। এবার আয়োজনটা বাড়ানো হয়েছে।  দু’বাংলার ২০টি সংগঠন মাতৃভাষা দিবস পালনে অংশ নিয়েছে।
আলোচনা সভায় প্রধান অতিথী শেখ আফিল উদ্দিন বলেন- ভাষা আন্দোলনের একষট্টি বছর পার হোল । ৬১বছর আগে আমরা বুকের রক্ত দিয়ে মাতৃভাষাকে প্রতিষ্ঠা করেছি । এ এক অনন্য ইতিহাস । পৃথিবীতে এর কোন দ্বিতীয় দৃষ্টান্ত নেই । বাঙ্গালীরা প্রাণ দিয়ে মুখের ভাষাকে কালজয়ী মহিমা দিয়েছে । মাতৃভাষার জন্য লড়াই করা জাতি হিসেবে পৃথিবীতে আমাদের পরিচয় ।
বিশেষ অতিথীর বক্তব্যে ওপার বাংলার লোকসভার সদস্য  ও খাদ্য ও সরবরাহ দপ্তরের মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বলেন -আজ বিশ্বব্যাপী একুশে ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালিত হচ্ছে । বাঙ্গালির জীবনে এ এক অপার গৌরব । আমরা  বাংলা ভাষাভাষী সবাই এ গৌরবের উত্তরাধিকারী । কিন্তু এ দিবসটির তাংপর্য আমরা যথাযথ ভাবে বিশ্বব্যাপি তুলে ধরতে পারেনি । এ মুহুর্তে আমাদের ভাষা  রক্ষায় মনোযোগ দিতে হবে । মনে রাখতে হবে মাতৃভাষা প্রীতি দেশপ্রেমের অন্যতম প্রধান অংশ।

 রিপোর্ট »বৃহস্পতিবার, ২১ ফেব্রুয়ারী , ২০১৩. সময়-১০:৫৫ pm | বাংলা- 9 Falgun 1419
WEBSBD.NET
রিপোর্ট শেয়ার করুন  »
Share on Facebook!Digg this!Add to del.icio.us!Stumble this!Add to Techorati!Seed Newsvine!Reddit!
EDITOR;ABUL HOSSAIN LITON, DHAKA OFFICE; NAHAR MONZILl,BOX NAGAR,DEMRA,DHAKA.OFFICE;MAHESHPUR,JHENAIDAH,BANGLADESH. Copyright © 2011 » All rights reserved http/shesherkhobor.com, MOB: 8801711245104,Email:shesherkhobor@gmail.com 
☼ Provided By  websbd.net  » System  Designed by HELAL .
GO TOP