Breaking »

Warning: include(/home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single-sidebar.php): failed to open stream: No such file or directory in /home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single.php(2) : eval()'d code(1) : eval()'d code on line 2

Warning: include(): Failed opening '/home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single-sidebar.php' for inclusion (include_path='.:/usr/lib/php:/usr/local/lib/php') in /home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single.php(2) : eval()'d code(1) : eval()'d code on line 2

মিরসরাইয়ে ট্রাফিক ও হাইওয়ে পুলিশ দ্বন্দ্বে ট্রাফিক পুলিশ প্রত্যাহার

মিরসরাই(চট্টগ্রাম)প্রতিনিধিঃ

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের অতি গুরুত্বপূর্ণস্থান মিরসরাই থানার ট্রাফিক মোড়খ্যাত বারইয়ারহাট পৌরসভা এলাকায় দীর্ঘ বেশ কয়েক বছর যাবত সড়কে যানজট নিরসন কল্পে একজন হাবিলদার ও ৪জন ট্রাফিক কনষ্টেবল শিফট অনুযায়ী ডিউটি করে আসছিলেন। কিন্তু হঠাৎ পূর্ব ঘোষনা ছাড়াই একযোগে সব ট্রাফিক পুলিশদের প্রত্যাহার করে নেয়ায় এখানে প্রতিনিয়ত যানজটের ভয়াবহতা আরো তীব্র আকার ধারণ করেছে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, গত বেশ কয়েক দিন যাবত পুরোনো দায়িত্বে নিয়োজিত ওসব হাইওয়ে পুলিশদের সাথে মাসিক হারে বিভিন্ন গাড়ি থেকে অবৈধভাবে টাকা নেয়ার ঘটনায় নতুন দায়িত্বে আসা হাইওয়ে পুলিশের সার্জেন্ট, এসআই ও এএসআইদের সাথে দ্বন্দ্ব চলার এক পর্যায়ে তাদের এখান থেকে প্রত্যাহার করে নেয়া হয়।

আর এখানে যাজট নিরসনের দায়িত্বে নিয়োজিত থাকা ট্রাফিক পুলিশদের পূর্ব কোনো ঘোষনা ছাড়াই হঠাৎ প্রত্যাহার করে নেয়ায় প্রতিনিয়ত এলাকাটিতে এখন যানজটে ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে। বিশ্বস্থ সূত্র জানায়, অতীতের সময় গুলোতে সে ব্যবস্থা না থাকলেও বর্তমানে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মিরসরাই থানার জোরারগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়িতে নতুন দায়িত্বে আসা সার্জেন্ট, এসআই ও এএসআই’রা বারইয়ারহাট বাজারে অবস্থান করা স্থানীয় বিভিন্ন ট্রাক, বাস, পিকআপ, সি,এন,জি সহ অন্যান্য গাড়িগুলো থেকে অবৈধ পন্থায় টাকা (চাঁদাবাজী) নেয়ার সিদ্বামত্ম নিয়ে অনিয়মকে নিয়মে পরিনত করার চেষ্টা করতে গেলে এতে ট্রাফিক পুলিশরা বাধ সাধে। আর এতে করে ট্রাফিক পুলিশদের সাথে হাইওয়ে পুলিশরা দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়ে।

সূত্র জানায়, হাইওয়ে পুলিশের সার্জেন্ট, এসআই ও এ,এস আই নিয়ম বহির্ভূতভাবে যে সব গাড়িগুলো থেকে অবৈধ পন্থায় টাকা নেয় সে সব গাড়ি গুলোকে ঢাকা-চট্টগ্রামের মেইন রোডের যত্র-তত্র দাঁড় করানোর সুযোগ সৃষ্টি করে দেয়। যার কারণে উভয় দিকে ঘন্টার পর ঘন্টা যানজট লেগে সীমাহীন বেগ পেতে হয় তাদের। যার কারণে ট্রাফিক পুলিশরা এর প্রতিবাদ করে যত্র-তত্র দাঁড় করানো গাড়িগুলো অন্যত্র সরিয়ে নিতে বললে তাদের ওপর ক্ষেপে যায় হাইওয়ে পুলিশের সার্জেন্ট এবং তার সাথে নতুন আসা অন্যান্যরা।

এক পর্যায়ে তারা মিথ্যে রিপোর্ট প্রদান করে উধ্বতন কর্তৃপক্ষের (পুলিশের) কাছে অনুরোধ করে এখান থেকে ট্রাফিক পুলিশদের প্রত্যাহার করে নিতে। কিন্তু কোনো বাধ-বিচার ছাড়াই ট্রাফিক পুলিশদের প্রত্যাহার করে নেয়া হয়। তবে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের অতি গুরুত্বপূর্ণস্থান মিরসরাই থানার ট্রাফিক মোড়খ্যাত বারইযারহাট বিশ্বরোডে ট্রাফিক পুলিশের পরিবর্তে এখন হাইওয়ে পুলিশরা ডিউটি করলেও যনজট নিরসনে চরমভাবে ব্যর্থ হচ্ছে বলে সচেতন মহল মনে করছেন। ফলে যা ভোগামিত্ম পোহাবার পোহাচ্ছে বিভিন্ন গাড়ির যাত্রী ও স্থানীয় জনসাধারন।

বারইয়ারহাট বিশ্বরোডে দায়ীত্বে থাকা উক্ত ট্রাফিক পুলিশদের মধ্যে হাবিলদার শাহজাহানকে চট্টগ্রাম কোর্ট পুলিশ, কনষ্টেবল হুমায়উন ও নুরুল ইসলামকে চট্টগ্রামের পাহাড়তলীতে ট্রাফিক পুলিশ হিসেবে এবং আবুল কালাম ও আব্দুস সামাদকে মিরসরাই থানা পুলিশের কনষ্টেবল হিসেবে বদলী করা হয়েছে। অন্য দিকে হাইওয়ে পুলিশের আরেক কনষ্টেবল (পদোন্নতি পাওয়ার সিরিয়ালে থাকা) নুরুজ্জামান উক্ত সার্জেন্ট ও অন্যান্যদের ওসব অন্যায়কে সমর্থন না দেয়ায় বদলী যাওয়ার নিধারিত সময়ের পূর্বেই তাকে ও ষড়যন্ত্রমূলক ভাবে এখান থেকে ঢাকার অদুরে মুন্সীগঞ্জে বদলী করা হয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

ঘটনার কারণ সম্পর্কে জানতে চাইলে বদলী যাওয়া ট্রাফিক হাবিলদার শাহজাহান কোনো কারণ সম্পর্কে বলতে অনিহা প্রকাশ করেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বদলী হওয়া ট্রাফিক পুলিশের এক কনষ্টেবল জানান, মোটা অংকে চাঁদাবাজী করার জন্য ষড়যন্ত্রমূলক আমাদেরকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে জোরারগঞ্জ চৌধুরীহাট হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির নবাগত ইনচার্জ মেহেদী হাসান দ্বন্দ্বের বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, হাইওয়ের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হাইওয়ে (কুমিল্লা) আশিকুজ্জামান আক্তার মহোদয় আমাকে গত ১৫ জানুয়ারী মুঠোফোনের মাধ্যমে ট্রাফিক পুলিশ সরিয়ে নিলে আমরা যানজট নিরসন করতে পারবো কিনা তা জানতে চেয়েছিল। তখন ট্রাফিক পুলিশরা আনোয়ারায় উপ-নির্বাচনের দায়িত্বরত ছিল। আমরা পারবো বলে সম্মতি প্রকাশ করলে আনোয়ারা থেকে ফিরে আসার পর ট্রাফিক পুলিশকে প্রত্যাহার করা হয়। তিনি আরো জানান বর্তমানে হাইওয়ে ফাঁড়িতে কর্মকর্তা সহ ২৪ জন পুলিশ রয়েছে। আশা করি যানজট নিরসনে কোনো সমস্যা হবে না।

 রিপোর্ট »মঙ্গলবার, ২২ জানুয়ারী , ২০১৩. সময়-১০:২৬ pm | বাংলা- 9 Magh 1419
WEBSBD.NET
রিপোর্ট শেয়ার করুন  »
Share on Facebook!Digg this!Add to del.icio.us!Stumble this!Add to Techorati!Seed Newsvine!Reddit!
EDITOR;ABUL HOSSAIN LITON, DHAKA OFFICE; NAHAR MONZILl,BOX NAGAR,DEMRA,DHAKA.OFFICE;MAHESHPUR,JHENAIDAH,BANGLADESH. Copyright © 2011 » All rights reserved http/shesherkhobor.com, MOB: 8801711245104,Email:shesherkhobor@gmail.com 
☼ Provided By  websbd.net  » System  Designed by HELAL .
GO TOP