Breaking »

Warning: include(/home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single-sidebar.php): failed to open stream: No such file or directory in /home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single.php(2) : eval()'d code(1) : eval()'d code on line 2

Warning: include(): Failed opening '/home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single-sidebar.php' for inclusion (include_path='.:/usr/lib/php:/usr/local/lib/php') in /home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single.php(2) : eval()'d code(1) : eval()'d code on line 2

মিরসরাইয়ে ১৪টি ইটভাটায় দেদারসে কাঠ পুড়ছে

মিরসরাই (চট্টগ্রাম)প্রতিনিধিঃ

চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ের ১৪ টি ইটভাটায় প্রকাশ্যে ও অপ্রকাশ্যে কাঠ পুড়ছে দেদারসে। এক্ষেত্রে পরিবেশ অধিদপ্তরের জারিকৃত একটি আইনও মানছে না ইটভাটা কর্তৃপক্ষ। অধিকাংশ ইটভাটা ড্রাম চিমনির নির্মিত ও বসতবাড়ির পাশ ঘেঁষে অবস্থিত। ফলে মারাত্মক পরিবেশ দূষণ ঘটছে, জনজীবনে নেমে এসেছে বিপর্যয়। প্রশাসন ও মিরসরাই ইটভাটা সমিতি এ ব্যাপারে কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় দীর্ঘদিন ধরে নির্বিঘ্নেই ইটভাটায় কাঠ পোড়ানো হচ্ছে।

অধিকাংশ ইটভাটা ঘুরে দেখা গেছে, প্রায় সব ক’টি ইটভাটাতেই বিভিন্ন প্রকারের অনিয়ম হচ্ছে। ভাটার পাশেই তূপীকৃত করে রাখা হয়েছে কাঠের স্ত্তপ। তাও আবার অত্যন্ত কচি কাঠ। মিরসরাইয়ের উপকূলীয় বনাঞ্চলসহ বিভিন্ন স্থানে বন উজাড় করে নির্বিচারে কাটা হচ্ছে কচি কাঠ। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের দু’পাশের কাঠ নিধনও এর একটি অংশ বলে জানা গেছে। এর ফলে একদিকে যেমন বনভূমি ধ্বংস হচ্ছে, অন্যদিকে আবার প্রচলিত আইন অমান্য করা হচ্ছে। ইট পোড়ানো নিয়ন্ত্রন আইন ১৯৮৯ অনুসারে ইটভাটায় কাঠ পোড়ানো সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। অথচ প্রচলিত এ আইনটির প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করে অধিকাংশ ইটভাটা কর্তৃপক্ষ অনেকটা প্রকাশ্যে কাঠ পোড়ানোর কাজ সারেন। দিনের বেলা কিংবা অনেক সময় রাতের আঁধারে ভ্যান ও ঠেলাগাড়িতে করে কাঠের গুঁড়ি এনে পোড়ানো হয়। সরেজমিনে পরিদর্শনকালে একটি ইটভাটায় প্রচুর কাঠের তূপ চোখে পড়ে। ভাটায় কর্মরত কর্মচারীদের প্রশ্ন করা হলে তারা এ বিষয়ে জানান, কয়লা পোড়ানোর সহায়ক হিসেবে কাঠ ব্যবহার করা হয়। ভাটায় দুই স্তরের মধ্যে অগ্নি সংযোগে কিছু কাঠ পোড়ানো হয়।

অপরদিকে, বেশ ক’টি ইটভাটা ড্রাম চিমনির নির্মিত। পরিবেশ অধিদপ্তরের জারিকৃত পরিপত্র (২০ অক্টোবর ২০০৩) অনুযায়ী ইটভাটায় ১২০ ফুট উঁচু চিমনি স্থাপন করে ইট পোড়ানো কার্যক্রম চালানোর নিয়ম রয়েছে। কিন্তু মিরসরাইয়ের এসব ইটভাটাতে নিয়ম বহির্ভূতভাবে ড্রাম চিমনি ব্যবহার করে ইট ভাটা তৈরী ও পোড়ানো হচ্ছে।

এছাড়া অধিকাংশ ইটভাটা সরকারি নিয়মের তোয়াক্কা না করে গড়ে উঠেছে। ইট পোড়ানো নিয়ন্ত্রন আইন (৪ ধারার ৫ উপধারা) মতে, আবাসিক এলাকা, উপজেলা সদর, ফলের বাগানের আশপাশের ৩ কিলোমিটারের মধ্যে ও পাহাড়ের ৫ কিলোমিটারের মধ্যে ব্রিকফিল্ড স্থাপন করা সম্পূর্ণ অবৈধ। কিন্তু উপজেলার ইটভাটাগুলোর অধিকাংশ একেবারে আবাসিক এলাকা ও পাহাড়ের পাদদেশে স্থাপন করা হয়েছে। এতে করে ইটভাটার নির্গত ধোঁয়া অতি সহজেই লোকালয় ও ক্ষেত খামারে ছড়িয়ে পড়ছে। ফলে বিপর্যস্ত হচ্ছে পরিবেশ। আবাসিক এলাকার পাশ ঘেঁষে ইটভাটা স্থাপন হওয়ায় বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পড়ছে অনেক আবাসন। ইটভাটা থেকে ইট নেয়ার সময় গাড়িগুলোর উপরিভাগ ঢাকা না থাকায় সেখানেও সৃষ্টি হচ্ছে নানারকম ভোগান্তি। জানা গেছে, এক শ্রেণীর অসাধু কর্তারা পরিবেশ নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তরকে ম্যানেজ করেই এসব অবৈধ কর্মকান্ড চালাচ্ছে।

মিরসরাইয়ের ইটভাটা মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম খোকা জানান, উপজেলার কোন ইটভাটাতে নিয়মনীতি বহির্ভূত কোন কাজ করা হচ্ছে না। ইটভাটায় কাঠ পোড়ানোর বিষয়টিও তিনি অস্বীকার করেন।

মিরসরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জানান, এ ব্যাপারে এখনো কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। তবে তিনি খোঁজ খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবেন।

 রিপোর্ট »বৃহস্পতিবার, ২০ ডিসেম্বার , ২০১২. সময়-৯:৩১ pm | বাংলা- 6 Poush 1419
WEBSBD.NET
রিপোর্ট শেয়ার করুন  »
Share on Facebook!Digg this!Add to del.icio.us!Stumble this!Add to Techorati!Seed Newsvine!Reddit!
EDITOR;ABUL HOSSAIN LITON, DHAKA OFFICE; NAHAR MONZILl,BOX NAGAR,DEMRA,DHAKA.OFFICE;MAHESHPUR,JHENAIDAH,BANGLADESH. Copyright © 2011 » All rights reserved http/shesherkhobor.com, MOB: 8801711245104,Email:shesherkhobor@gmail.com 
☼ Provided By  websbd.net  » System  Designed by HELAL .
GO TOP