Breaking »

Warning: include(/home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single-sidebar.php): failed to open stream: No such file or directory in /home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single.php(2) : eval()'d code(1) : eval()'d code on line 2

Warning: include(): Failed opening '/home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single-sidebar.php' for inclusion (include_path='.:/usr/lib/php:/usr/local/lib/php') in /home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single.php(2) : eval()'d code(1) : eval()'d code on line 2

সমস্যার বোঝা মাথায় নিয়ে এগিয়ে ছলেছে ভোমরা স্থল বন্দর

এম. বেলাল হোসাইন, সাতক্ষীরাঃ দেশের অর্থনীতির বিকাশে দক্ষিণের খোলা জানালা সাতক্ষীরার ভোমরা স্থল বন্দর নানা সমস্যায় জর্জরিত। সমস্যার বোঝা মাথায় নিয়ে দেশের জাতীয় অর্থনীতির খতিয়ানে এ বন্দর বিগত ১৭ বছরে যোগ করেছে ৯১৭ কোটি ৭১ লাখ ৬৮ হাজার ৭৩২ টাকা। জাতীয় অর্থনীতির বিকাশে অপার সম্ভাবনা থাকা সত্বেও ভোমরা স্থল বন্দর আজও পূর্ণাঙ্গ স্থল বন্দরের মর্যাদা পায়নি। বন্দরের ভৌত অবকাঠামোর আশানুরুপ উন্নয়ন না হওয়ায় বার বার থমকে গেছে অর্থনীতির চাকা। ট্রাক টার্মিনাল, পোর্ট পুলিশ স্টেশন,গোডাউন ওয়ার হাউজ,যাতায়াত ও যোগাযোগ ব্যবস্থা, সড়ক সংস্কার, শুল্ক স্টেশনের ভৌত অবকাঠামো উন্নয়নের অভাবে এ বন্দরের সকল সম্ভাবনা ম্লান হচ্ছে।  ভোমরা স্থল বন্দর শুল্ক স্টেশন কার্যালয় সূত্র জানায়, ১৯৯৬ সাল থেকে ২০১২ সালের জুন পর্যন্ত এবন্দর থেকে রাজস্ব আয় হয়েছে ৯১৭ কোটি ৭১ লাখ  ৬৮ হাজার ৭৩২ টাকা। সূত্র জানায়, ১৯৯৫-৯৬ অর্থ বছরে রাজস্ব আয় হয় এক কোটি ৮লাখ ৮০ হাজার ২২৫ টাকা। ১৯৯৬-৯৭ অর্থ বছরে ১ কোটি ৯৪ লাখ ৯৬ হাজার ৬২৯ টাকা। ১৯৯৭-৯৮ অর্থ বছরে রাজস্ব আয় বেড়ে দাঁড়ায় ৯ কোটি ৬৩ লাখ ৬১ হাজার ১৫৪ টাকা। ১৯৯৮-৯৯ অর্থ বছরে ২ কোটি ১৬ লাখ ২৭ হাজার ৬৮০ টাকা। ১৯৯৯-২০০০ অর্থ বছরে বন্দরের রাজস্ব আয় দাঁড়ায় ৪ কোটি ২৯ লাখ ২৩ হাজার ৩৫৮ টাকা। ২০০০-২০০১ অর্থ বছরে ৪ কোটি ৪৬ লাখ ৫৭ হাজার ৮৯৯ টাকা রাজস্ব আয় হয় ভোমরা বন্দর থেকে। ২০০১-০২ অর্থ বছরে রাজস্ব আয় বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়ায় ৪ কোটি ৭২ লাখ ২৭ হাজার ৫৫৮ টাকা। ২০০২-০৩ অর্থ বছরে আয় হয় ১২ কোটি ৬৬ লাখ ১২ হাজার ৩৮২ টাকা। ২০০৩-০৪ অর্থ বছরে এ বন্দর জাতীয় অর্থনীতিতে যোগ করে ৩৩ কোটি ৫৫ লাখ ৭৬ হাজার ২৭৩ টাকা। ২০০৪-০৫ অর্থ বছরে বন্দরের রাজস্ব আয় বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়ায় ৫৪ কোটি ৭৮ লাখ ৭৫ হাজার ৩২৫ টাকা। ২০০৫-০৬ অর্থ বছরে এ আয় দাঁড়ায় ৭৩ কোটি ৫৫ লাখ ৬৬ হাজার ৫৮ টাকায়। ২০০৬- অর্থ বছরের ভোমরা বন্দরের রাজস্ব আয় ৮৫ কোটি ৮৪ লাখ ৩ হাজার ৯৪৫ টাকা। ২০০৭-০৮ অর্থ বছরে ১২২ কোটি৭৬ লাখ ৯০ হাজার ২৭৫ টাকা, ২০০৮-০৯ অর্থ বছরে ৯৬ কোটি ৯ লাখ ১৪ হাজার ১৩৮ টাকা রাজস্ব আয় হয় ভোমরা স্থল বন্দর থেকে।  ২০০৯-১০ অর্থ বছরে বন্দর থেকে রাজস্ব আয় হয় ৮৭ কোটি ৫৫ লাখ ২৪ হাজার ৪২৭ টাকা। ২০১০-১১অর্থ বছরে বন্দরের রাজস্ব আয় দাঁড়ায় ১৪৮ কোটি ৫৩

লাখ ৭৮ হাজার ২৩৪ টাকা। সর্বশেষ গত ২০১১-১২ অর্থ বছরে ভোমরা স্থল বন্দর দেশের জাতীয় অর্থনীতির খতিয়ানে যোগ করে ১৭৪ কোটি ৪ লাখ ৫৩ হাজার ৩৭২ টাকা।

ভোমরা স্থল বন্দর শুল্ক স্টেশনের সহকারী কমিশনার আল আমীন জানান, ভোমরা স্থল বন্দর শুল্ক স্টেশন থেকে সরকার দৈনিক ৬০ থেকে ৭০ লাখ টাকার রাজস্ব পাচ্ছে। ব্যবসায়ীরা এ বন্দরে স্বাচ্ছন্দে ব্যবসা করলেও কিছু সমস্যা বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে। তিনি বলেন, প্রায় ৩০ একর জমির উপর শুল্ক স্টেশনটি অবস্থিত। সরকার কোটি কোটি টাকা রাজস্ব আয় করলেও শুল্ক স্টেশনের ভৌত অবকাঠামোর উন্নয়ন হয়নি।  এতে করে প্রতি বর্ষা মৌসুমে জলাবদ্ধতার কবলে পড়ে শুল্ক স্টেশনটি। কাস্টমস সুপারের কার্যালয় টিনের ছাউনি। টিনের চালে মরিচা ধরে ছিদ্র হয়ে গেছে। বৃষ্টি হলেই ঘরে পানি পড়ে। এতে করে কাগজপত্র সংরক্ষণ করা কঠিন হয়ে যায়।

তিনি আরো বলেন, ভারত থেকে আনার, আপেল, আংগুর মাল্টা, আম, টমেটো, সয়াবিন বড়ি, মেথি মসল্যা সহ প্রায় ৮১ প্রকার পণ্য আমাদের দেশে আসে। আবার আমাদের দেশ থেকে গার্মেন্টেসর জুট ও নারকেলের ছোবড়া সহ ১২/১৪ প্রকার ভারতে যায়।

ভোমরা স্থল বন্দর সি এন্ড এফ এজেন্ট এসোসিয়েমনের সাবেক সভাপতি আশরাফুজ্জামান আশু বলেন, ভোমরা স্থল বন্দরের প্রতিষ্ঠাতা স.ম আলাউদ্দীনকে ১৯৯৬ সালের ১৯ জুন রাতে ঘাতকরা গুলি করে হত্যা করে। এরপর থেকে থমকে যায় বন্দরের উন্নয়ন কর্মকান্ড। বর্তমান মহাজোট সরকার ক্ষমতায় আসার পর ৪৫ বিঘা জমির উপর ৩৫ কোটি ব্যয় করে ওয়্যার হাউজ নির্মান করছে। এছাড়া রাস্তা সংস্কারে ৬ কোটি টাকা বরাদ্দ হয়েছে।  কিন্তু বন্দরের নানা সমস্যা বিরাজ করছে। ট্রাক টার্মিনাল স্থাপন অতি জরুরী। এছাড়া বন্দর থানা স্থাপন করা লে সরকার এ বন্দর থেকে দৈনিক এক থেকে ২ কোটি টাকার রাজস্ব আয় করতে পারবে বলে তিনি মনে করেন।

সাতক্ষীরা সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম বলেন, ভোমরা বন্দরে বর্তমানে ৭০০ থেকে ১০০০ শ্রকিমের কর্ম-সংস্থান হয়েছে। মহাজোট সরকার ক্ষমতায় আসার পর ভোমরা স্থল বন্দরকে পূর্ণাঙ্গ বন্দরে রূপান্তরিত করার লক্ষ্যে ওয়্যার হাউজ নির্মান, সড়ক সংস্কার সহ বিভিন্ন উন্নয়ন করেছে। উন্নয়নের ধারা অব্যাগত আছে। ট্রাক- টার্মিনাল, ভৌত অবকাঠামো ও পুলিশ স্টেশন স্থাপিত হলে ব্যবসায়ী আরো বেশি স্বাচ্ছন্দে বন্দর ব্যবহারে উৎসাহিত হবে। ভোমরা স্থল বন্দর সি এন্ড এফ এজেন্ট এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক অহিদুল ইসলাম অহিদ বলেন, ভোমরা বন্দর এখনো পূর্ণাঙ্গ বন্দরে পরিণত হয়নি। কোলকাতা থেকে বেনাপোলের দূরত্ব ৮৪ কিলোমিটার কিন্তু কোলকাতা থেকে ভোমরার দূরত্ব ৫৫ কিলোমিটার। ভোমরা পূর্ণাঙ্গ বন্দরে রূপান্তরিত হলে ব্যবসায়ীদের যাতায়াতের দূরত্ব কমবে কমপক্ষে ৬০ কিলোমিটার। এতে করে ব্যবসায়ীরা ভোমরা বন্দরের দিকে ঝুকবে। ফলে সরকার এর বন্দর থেকে দৈনিক দু’শ কোটি টাকার রাজস্ব আয় করতে পারে। সকল সম্ভাবনা থাকা সত্বেও বন্দরের আশানুরূপ উন্নয়ন হয়নি বলে মন্তব্য করেন তিনি।

সাতক্ষীরা জেলা পরিষদ প্রশাসক মুনসুর আহমেদ বলেন, ১৯৯০ সালে শুল্ক স্টেশন হবার পর ১৯৯৫ সালে ভোমরা স্থল বন্দর নাম নিয়ে যাত্রা শুরু করে। দক্ষিনের খোলা জানালা ভোমরা স্থল বন্দর। দেশের জাতীয় অর্থনীতিতে এ বন্দর বর্তমানে যে ভূমিকা রাখছে অতীতের সরকার একটু যত্ন নিলেই তার তিন গুন বেশি ভূমিকা রাখতো। ভোমরা স্থল বন্দরের সম্ভাবনা কে কাজে লাগাতে বর্তমান সরকার আন্তরিক আছে বলে জানান তিনি।

 রিপোর্ট »বুধবার, ১২ ডিসেম্বার , ২০১২. সময়-৯:৫৩ pm | বাংলা- 28 Agrohayon 1419
WEBSBD.NET
রিপোর্ট শেয়ার করুন  »
Share on Facebook!Digg this!Add to del.icio.us!Stumble this!Add to Techorati!Seed Newsvine!Reddit!
EDITOR;ABUL HOSSAIN LITON, DHAKA OFFICE; NAHAR MONZILl,BOX NAGAR,DEMRA,DHAKA.OFFICE;MAHESHPUR,JHENAIDAH,BANGLADESH. Copyright © 2011 » All rights reserved http/shesherkhobor.com, MOB: 8801711245104,Email:shesherkhobor@gmail.com 
☼ Provided By  websbd.net  » System  Designed by HELAL .
GO TOP