Breaking »

Warning: include(/home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single-sidebar.php): failed to open stream: No such file or directory in /home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single.php(2) : eval()'d code(1) : eval()'d code on line 2

Warning: include(): Failed opening '/home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single-sidebar.php' for inclusion (include_path='.:/usr/lib/php:/usr/local/lib/php') in /home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single.php(2) : eval()'d code(1) : eval()'d code on line 2

ভেজালে ভরে গেছে ঠাকুরগাঁও

শাকিল আহম্মেদ, ঠাকুরগাঁও \ বিভিন্ন প্রকারের ভেজাল ওষুধ ও খাবারে ভরে গেছে ঠাকুরগাঁওয়ে হাট বাজার সর্বত্র। অভিনবসব কৌশলে খাদ্য দ্রব্য ফল মূলে উৎপাদনকারী ও ব্যবসায়ীরা ভেজাল মিশিয়ে থাকে।

ওষুধে ভেজাল দিলেও ডাক্তাররা কিছু বলতে নারাজ তারা নতুন নতুন কোম্পানির ওষুধ প্রেসক্রিপশনের লিখে রোগীদের খাওয়ানোর জন্য ওঠে পড়ে লেগে যায়। ঠাকুরগাঁওয়ে নিম্নমানের ওষুধ চালিয়ে দিলে তারা কমিশন পান যেমন যে কোনো টেস্ট করালে ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলো বিলের ৪০% থেকে ৫০% কমিশন ডাক্তারদের হিসাবে পাঠিয়ে দেয়। চিকিৎসালয় বা ক্লিনিকগুলো যেন টাকা হাতিয়ে নেয়ার কারখানা খুলে বসেছে। চিকিৎসার নামে দীর্ঘসূত্রিকা (বিল এবং রুম ভাড়া আদায়) বন্ধ করতে হবে। ঠাকুরগাঁওয়ে এলোপ্যাথি চিকিৎসার সাথে সাথে হোমিও, কবিরাজি, হেকিমি প্রভৃতি প্রচলিত, নির্ভরযোগ্য চিকিৎসার বাস্তবসম্মত প্রাতিষ্ঠানিক স্বীকৃতি দিয়ে আধুনিকায়ন করার ব্যবস্থা করলে কিছু দরিদ্র মানুষের চিকিৎসা সেবা সহজসাধ্য হতে পারে।

যেমনটি ধুমপানের ক্ষেত্রে একটি বিল পাস করা হয়েছে। অথচ হোটেল, বাস, রাস্তা, লোকালয় কেউ ধুমপান আইন মেনে চলে না। পুলিশ-প্রশাসন নীরবে দাঁয়িয়ে ধুমপানকারীকে সিনেমার ছবি দেখার মতো দেখে থাকে। অসাধু ব্যবসায়ীরা এবং উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান বিভিন্ন রাসায়নিক দ্রব্য, ফরমালিন, ইউরিয়া সার, পোড়া মবিল, ডিডি পাউডার, কাপড়ের রঙ আরো কত বিষাক্ত দ্রব্য খাবারের মধ্যে নির্বিঘ্নে মিশিয়ে দিচ্ছে আর আরামের সাথে অর্থ হাতিয়ে ঘরে উঠছে । বহু মানুষ অকালে মারা যাচ্ছে ভেজাল দ্রব্য সেবন করে। ক্যান্সার, হাঁপানী, গ্যাস্ট্রিক, পেটের পীড়া, হার্ট অ্যাটাক প্রভৃতি রোগকে আমরা টাকা দিয়ে কিনে খাচ্ছি।

শান্তিনগর এলাকার বাসিন্দা জাহিদ হাসান জানান, সততার মধ্য দিয়ে ব্যবসা-বাণিজ্য করলে বা ভেজাল বিহীন খাবার উৎপাদন করলে আমাদের ব্যবসায়ীদের খুব কী বেশি ক্ষতি হয়ে যায় ? ঠাকুরগাঁওয়েও মুড়ি, কলা, মাছ, মাংসা, কেক, ফাস্ট ফুড প্রভৃতি যে কোনো দ্রব্য সেবন করতে এখন ভয় লাগে।

মুড়ি, কেক এবং চালে দেয় ইউরিয়া, টিস্যু পেপার গুলিয়ে মিষ্টি তৈরি করে। পচা ডিম একটিও ফেলা হয় না সব কেকে মিশ্রিত হয়। হরমোন প্রয়োগ করে আনারসকে অল্পদিনে খাবার উপযোগী এবং সুস্বাদু বানায়। আরো কত অজানাসব কৌশল রয়েছে যা আমরা জানি না। কী এদের ধর্ম কর্ম, নীতি আদর্শ, কোথায় এদের মানবতাবোধ? এরা কী সারাজীবন দুনিয়াতে বেঁচে থাকবে ? ইতোমধ্যে অনেকেই ভেজালের ভয়ে খাদ্য-খাবার খাওয়া বন্ধ করে দিয়েছে। ভেজাল দ্রব্যের জন্য জরিমানা একটা মামুলি ব্যাপার। জরিমানায় ব্যয় হওয়া অর্থ উক্ত দ্রব্যের মূল্য বৃদ্ধি করে কয়েকদিনের মধ্যেই তারা তুলে ফেলছে। সাময়িক ভেজাল মিশানো কার্যকলাপ বন্ধ রাখলেও গোপনে বা কয়েক দিনের ব্যবধানে আবার পূর্বের অবস্থানে ফিরে যাচ্ছে। ঘুষের প্রবণতা আরো বেড়ে যাচ্ছে। টাকা দিয়ে বিভিন্ন পন্থায় ব্যবসা পরিচালনার প্রচেষ্টা চলছে। মোবাইল টিম ঘুরে আসার পরে উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান আরো বেশি বেশি চটকদার বিজ্ঞাপন দিয়ে দ্রব্যকে মানুষের কাছে হালাল করার প্রবণতা বাড়ছে। বিজ্ঞাপনের ভাষা পরিবর্তন করে আমাদেরকে বোকা বানানো হচ্ছে।

বিভিন্ন জায়গায় খোলা বাজারে, রাস্তার পাশে সর্বত্র বিস্তর খাবার দোকানের সমারহ। পচা দ্রব্য, পচা খাবার, পচা মাছ-মাংস, মরা মুরগির মাংস প্রভৃতি ফুটপাতে কমদামে বিক্রি করে বিক্রেতারা সরে পড়ছে। ঠাকুরগাঁওয়ের দরিদ্র্য মানুষ একটু কমদাম পেয়ে কিনছে ভেজালে ভরা পচা খাবার। ভেজাল দ্রব্যরোধকারী টিম বা প্রশাসন কি পারবে সব হোটেলে হোটেলে বা উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানে লাঠি হাতে ২৪ ঘন্টা পাহারা দিতে ? মানুষের নৈতিকতার পরিবর্তন ব্যতীত ভেজাল দ্রব্য বন্ধ করা খুবই কঠিন কাজ। প্রশাসনকে বেশ কিছু পদ্ধতি গ্রহণ করা উচিত। দ্রব্য মূল্য এবং দ্রব্যের মাননিয়ন্ত্রণে র‌্যাব বা আর্মি বা এ জাতীয় কঠোর প্রশাসনিক সংগঠন নামাতে হবে।

খোলা বাজারের সমস্ত খোলা খাবার বিক্রি চিরতরে বন্ধ করতে হবে। যেকোনো প্রকারের খাবার হোক না কেন তার বাজারজাত করতে অবশ্যই লাইসেন্স এবং জবাবদিহিতা থাকতে হবে; সেটা বাইরের শরবত বা ফুসকা বা রাস্তার বাদাম হলেও।

 রিপোর্ট »মঙ্গলবার, ২৭ নভেম্বার , ২০১২. সময়-১০:২৫ pm | বাংলা- 13 Agrohayon 1419
WEBSBD.NET
রিপোর্ট শেয়ার করুন  »
Share on Facebook!Digg this!Add to del.icio.us!Stumble this!Add to Techorati!Seed Newsvine!Reddit!
EDITOR;ABUL HOSSAIN LITON, DHAKA OFFICE; NAHAR MONZILl,BOX NAGAR,DEMRA,DHAKA.OFFICE;MAHESHPUR,JHENAIDAH,BANGLADESH. Copyright © 2011 » All rights reserved http/shesherkhobor.com, MOB: 8801711245104,Email:shesherkhobor@gmail.com 
☼ Provided By  websbd.net  » System  Designed by HELAL .
GO TOP