Breaking »

Warning: include(/home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single-sidebar.php): failed to open stream: No such file or directory in /home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single.php(2) : eval()'d code(1) : eval()'d code on line 2

Warning: include(): Failed opening '/home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single-sidebar.php' for inclusion (include_path='.:/usr/lib/php:/usr/local/lib/php') in /home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single.php(2) : eval()'d code(1) : eval()'d code on line 2

ভৌগলিক সীমারেখা আলাদা করতে পারেনি দুই বাংলার মানুষকে

শাকিল আহম্মেদ, ঠাকুরগাঁও|

শ্রী জগেন্দ্র নাথ রায় (৪৭)। ঠাকুরগাঁও জেলার হরিপুর উপজেলার আমগাঁও থেকে ছেলের সঙ্গে দেখা করতে এসেছেন তিনি। ছেলে জ্যোতিন্দ্রনাথ থাকেন ভারতের ইসলামপুরে। ৫ বছর আগে এখানেই দেখা হয়েছিল তাদের। তাই এবছরও সেখানেই সকাল থেকে কাঁটাতারের বেড়ার ফাঁক দিয়ে তাকিয়ে দীর্ঘ অপেক্ষা! শেষ পর্যন্ত কাঁটাতারের ৫০ গজ দূরে গিয়ে দূর থেকে ছেলের সঙ্গে খা। কান্নাজড়িত কণ্ঠে দু’জন দু’জনের সঙ্গে কথা বলেন দূর থেকেই। একজন অপর জনকে জড়িয়ে ধরার ইচ্ছে থাকলেও কাঁটাতারের বেড়া তা সে আশা পূরণ করতে দেয়নি।ধর্মপুর গ্রামের কানাই লাল রায় এসেছেন মেয়ে ও জামাইয়ের সঙ্গে দেখা করতে। শিলিগুড়িতে থাকা মেয়ে রিনা রানীকে ১০ বছর ধরে দেখেন না বাবা কানাই লাল। এবার এত ভিড়ের মধ্যে জামাই-মেয়ের মুখ দেখতে পারেননি তিনি। তাই উপায় না পেয়ে মোবাইল ফোনে কথা বলেন তারা। কাঠাঁলডাঙ্গী গ্রামের জামান ভাই রফিক ইসলামকে দেখলেন ৩ বছর পর। ইচ্ছা ছিল বুকে জড়িয়ে ধরতে কিন্তু মাঝখানে যে কাঁটাতারের বেড়া !পাথর কালী মেলা উপলক্ষে ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলার বেতনা সীমান্তে নাগর নদীর পাড়ে এবারও বসে দুই বংলার মানুষের মিলনমেলা।শুক্রতার দুপুর ১২টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত বসে এ মেলা।উষা ও নিরলার ভাই বিশ্বনাথ থাকেন শিলিগুড়িতে। ভাইয়ের জন্য পিঠা এনেছেন। কথা হলেও নিজ হাতের তৈরি পিঠা দিতে পারেননি। তবুও দেখার আনন্দ নিয়ে বিদায় নিলেন তারা।

রানীশংকৈল উপজেলার বাচোর থেকে মাধবী রানী এসেছেন ভারতের কাকরমনি গ্রামে থাকা মায়ের সঙ্গে দেখা করতে। তিনি জানান, বিয়ের পর এই প্রথম মাকে দেখলাম । তবে তেমন কথা হয়নি। অসুস্থ মাকে একনজর দেখে এলাম। এখন একটু ভালো লাগছে।ঠাকুরগাঁওয়ের রায়পুর থেকে মেয়েকে দেখতে এসেছেন  মহেশ বর্মণ তিনি জানান, নয় বছর ধরে মেয়ের সঙ্গে দেখা নেই। গতবার চেষ্টা করেও দেখা হয়নি । মেয়ে ও  জামাইয়ের জন্য পোলাও রান্না করে এনে ছিলাম।হরিপুর উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন ফেরদৌস টগর বলেন, হরিপুর উপজেলার অধিকাংশ এলাকা পাকিস্তান-ভারত বিভক্তির আগে ভারতের দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার অধীনে ছিল। এ কারনে দেশ বিভাগের পর আত্মীয় স্বজনেরা দুই দেশে ছড়িয়ে পড়ে । তাই সারা বছর এদের সঙ্গে দেখা সাক্ষাৎ করতে পারেনা। অপেক্ষা করে থাকে এই দিনের।দুই দেশের ভৌগলিক সীমারেখা আলাদা করা হয়েছে কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণ করে। কিন্তু সে কাঁটাতার আলাদা করতে পারেনি দুই দেশের মানুষের ভালবাসার টান। সুযোগ পেলেই এ টানেই তারা ছুটে যায় কাঁটাতারের বেড়ার কাছে, মিশে যান একে অন্যের সঙ্গে। নেকদিন পর আপনজনের দেখা পেয়ে আবেগে কেঁদে কেটে বুক ভাসান আর বুক হালকা করেন অনেকে। বিনিময় করেন মনের জমানো হাজারো কথা।

 রিপোর্ট »শুক্রবার, ২৩ নভেম্বার , ২০১২. সময়-৯:৩১ pm | বাংলা- 9 Agrohayon 1419
WEBSBD.NET
রিপোর্ট শেয়ার করুন  »
Share on Facebook!Digg this!Add to del.icio.us!Stumble this!Add to Techorati!Seed Newsvine!Reddit!
EDITOR;ABUL HOSSAIN LITON, DHAKA OFFICE; NAHAR MONZILl,BOX NAGAR,DEMRA,DHAKA.OFFICE;MAHESHPUR,JHENAIDAH,BANGLADESH. Copyright © 2011 » All rights reserved http/shesherkhobor.com, MOB: 8801711245104,Email:shesherkhobor@gmail.com 
☼ Provided By  websbd.net  » System  Designed by HELAL .
GO TOP