Breaking »

Warning: include(/home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single-sidebar.php): failed to open stream: No such file or directory in /home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single.php(2) : eval()'d code(1) : eval()'d code on line 2

Warning: include(): Failed opening '/home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single-sidebar.php' for inclusion (include_path='.:/usr/lib/php:/usr/local/lib/php') in /home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single.php(2) : eval()'d code(1) : eval()'d code on line 2

মিরসরাইয়ের বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রকল্প,প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের লাল ফিতায় বন্দি

মিরসরাই(চট্টগ্রাম)প্রতিনিধিঃ

দেশের বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলতে বেছে নেয়া হয়েছে মিরসরাই উপজেলার চরাঞ্চলের তিনটি মৌজার ৪৯ হাজার ২০০ একর জমি। প্রধানমন্ত্রীর তত্ত্বাবধানে এই অর্থনৈতিক বিশেষ জোন গড়ে তোলার জন্য একনেক এ প্রকল্পটি অনুমোদন করেছে। চলতি বছরের প্রথম দিকে প্রধানমন্ত্রী অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ড. মশিউর রহমান শিল্পমন্ত্রী দিলীপ বডুয়া, মিরসরাইয়ের সাংসদ ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনসহ বিশেষ জোন প্রকল্পের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সরেজমিন পরিদর্শন করেছেন। প্রয়োজনীয় জমিও বরাদ্ধ করা হয়েছিল। এর পর তৎপরতা থেমে গেছে। গত এক বছর আর কোন কর্মকান্ড চোখে পড়েনি। প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ প্রকল্পের ফাইল প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরেই লাল ফিতায় বন্ধি হয়ে আছে। এদিকে যে জায়গা জুড়ে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার পরিকল্পনা সরকার করছে তাতে রয়েছে ২০ হাজার একরেরও বেশি মিঠা পানি এবং ১৫ হাজার একর জায়গা জুড়ে লোনা পানির মৎস্য প্রকল্প। যেখান থেকে চট্টগ্রামের মৎস্য চাহিদার ৭০ভাগ পূরণ করা হয়। এসব জায়গায় নতুন শিল্প সৃষ্টির লক্ষ্যে সরকারের উদ্যোগকে সুধিজনরা স্বাগত জানালেও স্থানীয় মৎস্য চাষিরা সর্বস্ব হারিয়ে পথে বসবে। বর্তমানে প্রকল্পটি প্রসত্মাবনাকারে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে রয়েছে বলে শিল্প মন্ত্রনালয় সূত্র নিশ্চিত করেছে। তবে এই প্রকল্প কবে নাগাদ হচ্ছে বা তার ভবিষ্যৎ কি সে বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কেউ কিছু বলতে পারছেন না। তবে শিল্পমন্ত্রী দিলিপ বডুয়া জানিয়েছেন এটি প্রধানমন্ত্রীর একটি বিশেষ প্রকল্প। তাই সরাসরি প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর তদারকি করছে।

তবে মিরসরাইর সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন ‘এটি ধীর গতিতে চলছে।’ তিনি প্রকল্পের বর্তমান অবস্থা কি সে বিষয়ে কোন কিছুই বলেননি। প্রধানমন্ত্রীর অর্থ উপদেষ্টা ড. মশিউর রহমানের নেতৃত্বে একটি দল চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে ইছাখালী, বাঁশখালী ও কোম্পানী নগর চর পরিদর্শন করেন। ওই সময় তিনি জানিয়েছিলেন, অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার পর বিদেশী বিনিয়োগ বাড়াতে উন্নত দেশগুলোর সঙ্গে যোগাযোগ শুরু করেছে সরকার। ইতোমধ্যে কয়েক দফায় চীন, মালয়েশিয়া, জাপান ও সিঙ্গাপুর থেকে প্রতিনিধিদল ইছাখালীর চর সফর করেছেন। পরিকল্পনা চূড়ামত্ম করতে বিশ্বব্যাংকের আইএফসির (ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স কর্পোরেশন) সঙ্গে চুক্তি করা হয়েছে।

সংসদে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল বিল পাশ হয় ২০১০ সালের আগষ্ট মাসে। এরপর একই বছরের ২৯ ডিসেম্বর মহামায়া প্রকল্পের উদ্বোধন করতে এসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রতিশ্রুতি দেন, ‘মিরসরাইয়ের ইছাখালীর চরে শিল্পপার্ক গড়ে তোলা হবে’। এরপর প্রধানমন্ত্রী শিল্পমন্ত্রী দিলীপ বড়ুয়াকে শিল্পপার্কের কাজ শুরু করতে নির্দেশনা দেন। মাঠপর্যায়ে জরিপ করতে গিয়ে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার জন্য মিরসরাইয়ের কোম্পানী নগর, বাঁশখালী ও ইছাখালী এই তিনটি মৌজাকে বেছে নেওয়া হয়।

এদিকে অর্থনৈতিক অঞ্চলের জন্য প্রসত্মাবিত জায়গাজুড়ে রয়েছে হাজার হাজার একর মৎস্য প্রকল্প। এখানে মিঠা পানি এবং লোনা পানিতে মাছ চাষ হয়ে আসছে। ৮০ দশকের পর থেকে প্রামিত্মক চাষিরা এখানে মাছ চাষ শুরু করে। মৎস্য বিভাগের তথ্য মতে চট্টগ্রাম জেলার মোট মৎস্য চাহিদার প্রায় ৭০ ভাগ মৎস্য উৎপাদন হয় মিরসরাই উপজেলার মুহুরী প্রজেক্ট এলাকার কোম্পানী নগর, বাঁশখালী এবং ইছাখালী চরে। বর্তমানে সরকার যেখানে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল (স্পেশাল ইকোনোমিক জোন) স্থাপনের পরিকল্পনা করছে। এতে মৎস্য চাষিরা বড় ধরণের ক্ষতির আশঙ্কা নিয়ে নতুন করে কোন বিনিয়োগ করছে না। এ বছরের প্রথম দিক থেকে এখানে নতুন কোন মৎস্য প্রকল্প চালু হয়নি। বিগত বছরগুলোতে যেখানে ছোট-বড় ৫০০ নতুন দিঘী খনন করে নতুন চাষ শুরু করে চাষিরা। সেখানে চলতি বছর নতুন কোন দিঘী খনন করা হয়নি এবং নতুন কোন বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান এখানে আসেনি।

এ ব্যাপারে স্থানীয় শীর্ষ মৎস্য প্রকল্পের মালিকদের বক্তব্য, গত বছর থেকে মুহুরী প্রজেক্ট এলাকায় বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের সরকারী পরিকল্পনার পরপরই তারা নতুনভাবে কোন বিনিয়োগ ঝুঁকি নেয়নি।

অপরদিকে শিল্পমন্ত্রী দিলীপ বড়ুয়া জানান, মৎস্য চাষিদের যেন ক্ষতি না হয় সরকার অবশ্যই সেদিকে বিশেষ দৃষ্টি রাখবে। মৎস্য প্রকল্প এলাকায় বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনে মৎস্য শিল্পের ক্ষতি সম্পর্কে জানতে চাইলে মিরসরাইর সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়vর মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘এখানে কোন বৈধ মৎস্য প্রকল্প নেই, সবগুলো অবৈধভাবে সরকারী জমি দখল করা হয়েছে।’

প্রধানমন্ত্রীর অর্থ উপদেষ্টা ড. মশিউর রহমান চলতি বছরের প্রথম দিকে সরেজমিন পরিদর্শনে আসলে তার কাছে মিরসরাইয়ের চরাঞ্চলে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলা হলে মৎস্য শিল্পের ক্ষতি সাধনের বিষয়টি তুলে ধরে জানতে চাইলে তিনি বলেছিলেন, ‘এবিষয়ে আমার সরেজমিন রিপোর্ট প্রধানমন্ত্রীকে পেশ করবো এবং প্রধানমন্ত্রী এবং সংশ্লিষ্ট সকলেই বাসত্মব প্রেক্ষিতে নিশ্চই পজেটিভ সিদ্ধামত্ম নিবেন।’ যাতে কেউ ক্ষতিগ্রসত্ম না হয়।

মুহুরী প্রজেক্ট এলাকায় সরকার দুস্থ ও অসহায় মুক্তিযোদ্ধাদের কয়েকশ একর মৎস্য প্রকল্প রয়েছে যার অধিকাংশ চিংড়ি চাষের উপযোগী। বর্তমানে অসহায় এসব মুক্তিযোদ্ধারা চরম আতঙ্কে রয়েছে নিজের শেষ সম্বলটুকু হারানোর ভয়ে।

মিরসরাই উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের কমান্ডার কবির আহম্মদ জানান, সরকার যদি বাঁশখালী, কোম্পানী নগর এবং ইছাখালী মৌজার উত্তরাঞ্চলকে বাদ দেয় এবং শুধুমাত্র দক্ষিণ ইছাখালী মৌজায় ইকোনোমিক জোন করে তাহলে মৎস্য শিল্পের তেমন কোন ক্ষতি সাধন হবেনা।

মিরসরাই মৎস্য চাষি সমবায় সমিতির সভাপতি মোসত্মফা চৌধুরী জানান, সরকার মুহুরী প্রজেক্ট এলাকায় স্পেশাল ইকোনোমিক জোন স্থাপন করার যে পরিকল্পনা নিয়েছে তা মৎস্য শিল্পের ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। এছাড়া তিনি আরো জানান, সরকারের তরফ থেকে এটি স্থাপন করার কথা উঠলে শত শত মৎস্য চাষিরা নতুন বিনিয়োগ বন্ধ করে দিয়েছে। এতে চলতি বছর পূর্বের তুলনায় মাছ উৎপাদনের লক্ষমাত্রা অর্জিত হয়নি। এ বিষয়ে মিরসরাই উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ আবুল কালাম আজাদ জানান, যে অঞ্চলে সরকার ইকোনোমিক জোন করার পরিকল্পনা করেছে সেখানে বৈধ প্রকল্প তেমন নেই। চলতি বছরের প্রথম দিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সহ একটি টিম সরেজমিনে ওই এলাকায় গিয়ে মাছ চাষিদের সাথে কথা বলে সরকারে এই বৃহৎ প্রকল্প স্থাপনের কথা আনুষ্ঠানিকভাবে জানিয়ে আসেন। তবে এসময় তিনি পূর্বের বছরগুলো থেকে এবছর মাছ চাষ কমে এসেছে বলে স্বীকার করেন।

 রিপোর্ট »রবিবার, ১১ নভেম্বার , ২০১২. সময়-৯:৩৩ pm | বাংলা- 27 Kartrik 1419
WEBSBD.NET
রিপোর্ট শেয়ার করুন  »
Share on Facebook!Digg this!Add to del.icio.us!Stumble this!Add to Techorati!Seed Newsvine!Reddit!
EDITOR;ABUL HOSSAIN LITON, DHAKA OFFICE; NAHAR MONZILl,BOX NAGAR,DEMRA,DHAKA.OFFICE;MAHESHPUR,JHENAIDAH,BANGLADESH. Copyright © 2011 » All rights reserved http/shesherkhobor.com, MOB: 8801711245104,Email:shesherkhobor@gmail.com 
☼ Provided By  websbd.net  » System  Designed by HELAL .
GO TOP