Breaking »

Warning: include(/home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single-sidebar.php): failed to open stream: No such file or directory in /home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single.php(2) : eval()'d code(1) : eval()'d code on line 2

Warning: include(): Failed opening '/home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single-sidebar.php' for inclusion (include_path='.:/usr/lib/php:/usr/local/lib/php') in /home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single.php(2) : eval()'d code(1) : eval()'d code on line 2

১৪ দলের গণমিছিল

শেষের খবর ডেস্ক:

যুদ্ধাপরাধের বিচার ত্বরান্বিত করার দাবিতে দুই দিনের গণমিছিল কর্মসূচি ঘোষণা করেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দল। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- ৭ জানুয়ারি জেলা এবং ১১ জানুয়ারি উপজেলা পর্যায়ে গণমিছিল।
বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজধানীতে গণমিছিল শেষে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ থেকে ১৪ দলের সমন্বয়ক সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন।
সমাবেশে যুদ্ধাপরাধী ও মানবতাবিরোধীদের বিচার ত্বরান্বিত করা, স্বাধীনতা সমুন্নত রাখা এবং সমৃদ্ধ সোনার বাংলা গড়ার জন্য নেতা-কর্মীদের শপথবাক্য পাঠ করান আওয়ামী লীগের এই প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সংসদ উপনেতা।
এছাড়া সমাবেশের শুরুতে সদ্য প্রয়াত আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ও সাবেক পানিসম্পদমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক এমপি’র স্মরণে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।
সাজেদা চৌধুরী বলেন, রাজাকার ও যুদ্ধাপরাধীরা এখনোও দেশে হত্যাকাণ্ড ঘটিয়ে যাচ্ছে। এটা আর সহ্য করা হবে না। এসময় দলের নেতা-কর্মীদের দেশের সকল জেলা ও উপজেলায় ঘরে ঘরে রাজাকারদের খুঁজে বের করার নির্দেশ দেন।
আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেন, যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে গণজাগরণ তৈরি হয়েছে। আজকের এ গণমিছিল তারই প্রমাণ বহন করে।
তিনি বলেন, স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় যারা মানবতাবিরোধী অপরাধ করেছে, তাদের ফাঁসি দিয়ে এ সরকার জাতিকে কলঙ্কমুক্ত করবে।
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার প্রতি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে হানিফ বলেন, যুদ্ধাপরাধীদের বাঁচাতে তিনি উঠে পড়ে লেগেছেন। এর পরিণাম ভালো হবে না। এ অপরাধে খালেদার বিচার বাংলার জনগণ করবে।
যুদ্ধাপরাধীদের বিচার মানুষ আরো তাড়াতাড়ি চায় দাবি করে রেলমন্ত্রী সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত বলেন, এজন্য ট্রাইব্যুনালের সংখ্যা বাড়াতে হবে। আরো অভিজ্ঞ, দক্ষ ও প্রবীণ আইনজীবীদের এই বিচারের সাথে সম্পৃক্ত করতে হবে।
মহাজোটের অন্যতম শরিক ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেন, খালেদা জিয়া বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষার চেষ্টা করছেন। এখন এ বিচার শেষ করার সময় এসেছে।
সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া বলেন, মহাজোট সরকার যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের কাজ শুরু করেছে, এ বিচার অবশ্যই সম্পন্ন করা হবে। মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারের মাধ্যমে শহীদদের ঋণ শোধ করা হবে।
সমাবেশে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য মতিয়া চৌধুরী, সাহারা খাতুন ও আবদুল লতিফ সিদ্দিকী, জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু, গণতান্ত্রিক পার্টির সাধারণ সম্পাদক নূর-উর রহমান সেলিম, জাতীয় পার্টির নেতা মুজিবুল হক চুন্নু, ন্যাপ নেতা অ্যাডভোকেট এনামুল হক।
এরআগে দুপুর আড়াইটা থেকে ঢাকার ২৮টি থানা, ১০০টি ওয়ার্ড এবং ১৯টি ইউনিয়ন থেকে গণমিছিলের যাত্রা শুরু করে। আওয়ামী লীগ ও ১৪ দলের সব শাখা ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী-সমর্থকরা এ গণমিছিলে অংশ নেয়।
এছাড়া সেক্টর কমান্ডার্স ফোরাম, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, বিভিন্ন ছাত্র-যুব-শ্রমিক-শিক্ষক-কৃষক-সাংস্কৃতিক ও পেশাজীবী সংগঠনসহ মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের ও যুদ্ধাপরাধীদের বিচার দাবিতে আন্দোলনরত সব সংগঠনের নেতাকর্মীদেরও গণমিছিলে অংশ নিতে দেখা গেছে।উল্লেখ্য, গত ২০ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ১৪ দলের শীর্ষ নেতাদের বৈঠক হয়। ওই বৈঠকে যুদ্ধাপরাধের বিচারে জনসচেতনতা সৃষ্টির জন্য গণমিছিল কর্মসূচির সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিল।

 রিপোর্ট »শুক্রবার, ৩০ ডিসেম্বার , ২০১১. সময়-১২:০০ am | বাংলা- 16 Poush 1418
WEBSBD.NET
রিপোর্ট শেয়ার করুন  »
Share on Facebook!Digg this!Add to del.icio.us!Stumble this!Add to Techorati!Seed Newsvine!Reddit!
EDITOR;ABUL HOSSAIN LITON, DHAKA OFFICE; NAHAR MONZILl,BOX NAGAR,DEMRA,DHAKA.OFFICE;MAHESHPUR,JHENAIDAH,BANGLADESH. Copyright © 2011 » All rights reserved http/shesherkhobor.com, MOB: 8801711245104,Email:shesherkhobor@gmail.com 
☼ Provided By  websbd.net  » System  Designed by HELAL .
GO TOP