Breaking »

Warning: include(/home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single-sidebar.php): failed to open stream: No such file or directory in /home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single.php(2) : eval()'d code(1) : eval()'d code on line 2

Warning: include(): Failed opening '/home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single-sidebar.php' for inclusion (include_path='.:/usr/lib/php:/usr/local/lib/php') in /home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single.php(2) : eval()'d code(1) : eval()'d code on line 2

মিরসরাইয়ে পর্যটন শিল্প আলোর মুখ দেখছে না

মুহাম্মদ দিদারুল আলম, মিরসরাই(চট্টগ্রাম)

যথেষ্ট সম্ভাবনা থাকা সত্ত্বেও পর্যটন কেন্দ্র আলোর মুখ দেখছে না চট্টগ্রামের মিরসরাই উপজেলায়। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মহামায়া সেচ সম্প্রসারণ প্রকল্প উদ্বোধন করতে এসে এখানে দ্রুত পর্যটন কেন্দ্র বাস্তবায়নের কথা বললেও এর কোন অগ্রগতি নেই।

দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম কৃত্রিম লেক মহামায়া প্রকল্প ছাড়াও মুহুরী ও বাওয়াছড়া প্রকল্প পর্যটনের জন্য হাতছানি দিচ্ছে। যথাযথ নজরদারি পেলে মিরসরাইয়ে কমপক্ষে তিনটি পর্যটন কেন্দ্র গড়ে উঠতে পারে। পর্যটন কেন্দ্র না হয়েও এ তিনটি স্থানে বিভিন্ন সময় ভ্রমণপিপাষু মানুষের ঢল নামে। ফলে এসব স্থানে পর্যটন কেন্দ্রের প্রয়োজনীয়তা দেখা দিচ্ছে।

স্বাধীনতার ৪০ বছর পরও এত সম্ভাবনার মিরসরাইয়ে একটিও পর্যটন কেন্দ্র না হওয়ায় এখানকার মানুষের মধ্যে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। পাশাপাশি গত আওয়ামী লীগ সরকারের শাসনামলে মিরসরাইয়ের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন পর্যটন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী থাকলেও তিনি এখানে কোন পর্যটন কেন্দ্র বাস্তবায়ন করতে ব্যর্থ হন। অবশ্য বছর খানেক পূর্বে ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ এ প্রতিবেদককে জানিয়েছিলেন, ‘সরকার সারাদেশে নতুন ২২ হাজার পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলার কাজ শুরু করেছে। সেই প্রকল্পের আওতায় মিরসরাইয়ে অন্ততঃ দুটি পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলা হবে।’ যদিও তাঁর সেই বক্তব্যের এক বছরের মধ্যেও কোন অগ্রগতি দেখা যায়নি। তবে উপজেলা সমন্বয় সভাগুলোতে পর্যটন কেন্দ্র নিয়ে নিজেও হতাশা ব্যক্ত করেন মোশাররফ। এ নিয়ে সংশি­ষ্ট মন্ত্রণালয়ে তিনি যোগাযোগ অব্যাহত রাখার কথাও জানান বিভিন্ন সভায়।

এ প্রসঙ্গে কথা বলার জন্য মুঠোফোনে চেষ্টা করা হলেও ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনকে পাওয়া যায়নি। তবে মিরসরাই উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. গিয়াস উদ্দিন বলেন, ‘সর্বশেষ জেলা সমন্বয় সভায় মহামায়া প্রকল্পে পর্যটন কেন্দ্র বাস্তবায়নে বিলম্বের বিষয়টি তুলে ধরেছি। বন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান বিষয়টি সংশি­ষ্ট মন্ত্রণালয়ে অনুমোদনের অপেক্ষায় থাকার কথা জানিয়েছেন অনুমোদন পেলে দ্রুত পর্যটন কেন্দ্র বাস্তবায়নের কাজ শুরু হবে। বন বিভাগের অধীনেই এখানে অত্যাধুনিক পর্যটন কেন্দ্র গড়ে উঠবে মহামায়ায়।’

মিরসরাইয়ে পর্যটন কেন্দ্র গড়ে না ওঠায় হতাশা ব্যক্ত করে উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ফেরদৌস হোসেন আরিফ বলেন, ‘মহামায়া প্রকল্প উদ্বোধনের পর একটা বড় আশা জেগেছিল। কিন্তু বন বিভাগ ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের মধ্যকার সমন্বয়হীনতার কারণে তা আলোর মুখ দেখছে না। মহামায়া প্রকল্প এখন সন্ত্রাসের অভয়াশ্রম হিসেবে পরিচিত হচ্ছে।’

পাশাপাশি মিরসরাই-সোনাগাজী সীমান্ত এলাকার মুহুরী প্রকল্পও ব্যাপক সম্ভাবনাময় উলে­খ করে আরিফ আরো বলেন, বিভিন্ন দেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির একটি বড় অংশ পর্যটন বিভাগ। কিন্তু বাংলাদেশে এ খাতটি খুবই অবহেলিত।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত বছরের ২৯ ডিসেম্বর মহামায়া সেচ সম্প্রসারণ প্রকল্প উদ্বোধনের পরই অনেকটা লাইমলাইটে চলে আসে প্রকল্পটি। এর পর থেকে অদ্যাবধি পর্যটকমুখর প্রায় ১১ বর্গকিলোমিটার আয়তনের লেকটি। দেশের বিভিন্ন জেলা-উপজেলা থেকে আগত পর্যটকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, পর্যটন কেন্দ্র গড়ে উঠলে এর চাহিদা আরো ব্যাপকতর হবে। প্রকৃতির দেওয়া নৈসর্গিক সুন্দরের সঙ্গে সরকারের একটু নজরদারি যোগ হলেই মহামায়া লেক তার শতভাগ সুভা ছড়িয়ে দেবে পর্যটকদের মাঝে।

১৯৮৪ সালে ১৮৪ কোটি টাকা ব্যয়ে ক্ষুদ্র সেচ প্রকল্পের আওতায় বাস্তবায়িত হয় মুহুরী প্রকল্প। চট্টগ্রামের মিরসরাই ও ফেনীর সোনাগাজী উপজেলার সীমানা চি‎‎হ্নতকারী এ প্রকল্পটি একদিকে মৎস্য ও কৃষিক্ষেত্রে বৈপ­বিক পরিবর্তন ঘটিয়েছে, অপরদিকে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য বিলিয়ে দিচ্ছে পর্যটকদের মাঝে। এখানেও প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন স্থানের মানুষ বনভোজন থেকে শুরু করে বেড়াতে আসছেন। ডিঙি নৌকা এবং ইঞ্জিনচালিত বোটে করে অগভীর জলে ঘুরে বেড়াতে দেখা যায় পর্যটকদের।

অপরদিকে, মিরসরাইয়ের ১৫ নম্বর ওয়াহেদপুর ইউনিয়নের মধ্যম ওয়াহেদপুর এলাকায় বাস্তবায়ন করা হয়েছে বাওয়াছড়া প্রকল্প। বেসরকারি একটি সংগঠন প্রকল্পটি বাস্তবায়নের পর এলাকাটি সৌন্দর্যমন্ডিত হয়ে ওঠে। ফলে সেখানেও ভ্রমণপিপাষুদের ভিড় জমে।

বিপুল সম্ভাবনার মিরসরাইয়ে পর্যটন কেন্দ্রগুলো আলোর মুখ দেখলে একদিকে যেমন অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি বাড়বে, অন্যদিকে দেশের বুকে মিরসরাইয়ের ভূমিকা আরো এক ধাপ উজ্জ্বল হবে।

 রিপোর্ট »বুধবার, ২৮ ডিসেম্বার , ২০১১. সময়-৫:১৯ pm | বাংলা- 14 Poush 1418
WEBSBD.NET
রিপোর্ট শেয়ার করুন  »
Share on Facebook!Digg this!Add to del.icio.us!Stumble this!Add to Techorati!Seed Newsvine!Reddit!
EDITOR;ABUL HOSSAIN LITON, DHAKA OFFICE; NAHAR MONZILl,BOX NAGAR,DEMRA,DHAKA.OFFICE;MAHESHPUR,JHENAIDAH,BANGLADESH. Copyright © 2011 » All rights reserved http/shesherkhobor.com, MOB: 8801711245104,Email:shesherkhobor@gmail.com 
☼ Provided By  websbd.net  » System  Designed by HELAL .
GO TOP