Breaking »

Warning: include(/home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single-sidebar.php): failed to open stream: No such file or directory in /home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single.php(2) : eval()'d code(1) : eval()'d code on line 2

Warning: include(): Failed opening '/home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single-sidebar.php' for inclusion (include_path='.:/usr/lib/php:/usr/local/lib/php') in /home/shesherk/public_html/wp-content/themes/shesherkhobor/single.php(2) : eval()'d code(1) : eval()'d code on line 2

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে সিএনজি অটোরিক্শার সন্ত্রাস

মিরসরাই(চট্টগ্রাম)থেকে মু.দি.আলম,

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে সড়ক দুর্ঘটনার সবচেয়ে বড় কারণ সিএনজি অটোরিক্শা। এসব মোটরযানের ৯০ ভাগ চালকের কোন প্রকারের দক্ষতা ও অনুমোদন নেই। নেই ন্যূনতম অভিজ্ঞতা। এই সিএনজি অটোরিক্শা এখন মহাসড়কে সন্ত্রাসে রূপ নিয়েছে বলে মত দিয়েছেন অনেকেই।

অননুমোদিত শত শত সিএনজি অটোরিক্শা খোদ মহাসড়ক দখল করেই সড়কে স্বাভাবিক যান চলাচল ব্যাহত করার দৃশ্য দেখা যাচ্ছে। বড় যানবাহনগুলো ওই পথ দিয়ে চলতে গিয়ে বিভিন্ন সময় অটোরিক্শা চালকদের হাতে নাজেহাল, এমনকি হামলারও শিকার হয়।

মহাসড়কের বার আউলিয়া হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওয়াহিদুর রহমান বলেন, সিএনজি অটোরিক্শার ভেল্কিবাজির কারণে বড় গাড়িগুলো খেই হারিয়ে ফেলে। ছোট গাড়ি হয়েও উপর্যুপুরী ওভারটেক করতে অভ্যস্ত সিএনজি অটোরিক্শাগুলো। ফলে নিমিষেই বড় যানবাহনের নিচে চাপা পড়ে পাঁচ থেকে আটজন যাত্রী নেওয়া সিএনজি অটোরিক্শাগুলো।

সম্প্রতি মহাসড়কের  উপজেলার বারইয়ারহাটের একটি দৃশ্য চোখে পড়েছে। হঠাৎ চিৎকার আর হই-হুল্লোড়ের শব্দে সকলেই ছুটছিলেন একদিকে। দূর থেকে দেখা যাচ্ছে, একটি ট্রাককে ঘিরে এ কান্ড। দল বেঁধে কয়েকজনের এ্যকশনের চিত্র দেখা গেল ট্রাক ও চালকের ওপর। কেউ চালকের মুখে ঘুষি মারছেন, কেউবা ট্রাকের কাচ ভাঙছেন। এক অরাজক পরিস্থিতি। ট্রাকের অপরাধ, এ রাস্তায় কেন এলে। এটা সিএনজি অটোরিক্শার ‘দখলে’।

অনুসন্ধানে জানা গেল, ট্রাক যে পথে আসছিল সেই মহাসড়কে অবৈধভাবে থরে থরে সাজিয়ে রাখা হয়েছিল সিএনজি অটোরিক্শা। এসব অটোরিক্শার একটিরও নেই রেজিষ্টেশন। চালকদের নেই ড্রাইভিং লাইসেন্স। নিজেদের সকল অনিয়মকে বৈধ করতে দাপটের সঙ্গে সার্বক্ষণিক অবস্থান করে অটোরিক্শা চালকরা। যার প্রমাণ পাওয়া গেল, নিরপরাধ ট্রাক চালকের ওপর হামলার দৃশ্যে। কেবল ওই মূহুর্ত নয়, প্রায় প্রতিদিনই অটোরিক্শা চালকদের হামলার শিকার হতে হয় বড় গাড়িগুলোকে।

সিএনজি অটোরিক্শা চালকদের দাবী, বড় গাড়ি এ রাস্তা দিয়ে চলতে পারবে না। ওদের রাস্তা ডিভাইডারের ভেতরেরটা। বড় গাড়ি এ রাস্তায় প্রবেশ করলে অটোরিক্শার সমস্যা হয়। একটি গাড়ির ওপর হামলা করলে অন্যরা বুঝে নেবে। তাই সহজ বুদ্ধিটা কাজে লাগানো হচ্ছে।

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বারইয়াহাট পৌরসদরের শান্তিরহাট সংযোগ সড়কের মুখে সার্বক্ষণিক অবস্থান নেয় দেড় থেকে দুইশ সিএনজি অটোরিক্শা। মহাসড়ক দখল করে থরে থরে সাজিয়ে রাখা অটোরিক্শাগুলো যাত্রী নিয়ে যায় ফেনী, ছাগলনাইয়া, মুহুরীগন্জ, শান্তিরহাটসহ বিভিন্ন স্থানে।

আন্তঃজেলা শ্রমিক ইউনিয়নের বারইয়াহাট শাখার যুগ্ম সম্পাদক জহিরুল হক রাসেল স্বীকার করেন, অটোরিক্শাগুলো অবৈধভাবে মহাসড়কের ওপর রাখা হয়। ফলে বিভিন্ন সময় নানা দুর্ঘটনা ঘটে। প্রতি মূহুর্তে লেগে যায় যানজট। বারইয়াহাট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় সড়কটিও অবরূদ্ধ এর কারণে। অপরিকল্পিতভাবে যত্রতত্র অটোরিক্শাগুলো রাখা হলেও প্রশাসন সেদিকে উদাসীন ভূমিকায় রয়েছে।

সরেজমিন দেখা গেল, মহাসড়কের ডিভাইডারের ভেতরের অংশটা ভেঙে ছিন্ন-ভিন্ন হয়ে গেছে। যান চলে অতি মন্থর গতিতে। ফলে ডিভাইডারের উভয় পাশের অংশ দিয়ে চলতে হয় অনেক যানবাহনকে। এতেই বিপত্তি আর বিড়ম্বনার শিকার হয় এসব যানবাহনের চালকদের।

অনুসন্ধানে আরও জানা গেছে, সিএনজি অটোরিক্শা মালিকরা ১২ ঘন্টার বিনিময়ে চালকদের কাছ থেকে নেন পাঁচ থেকে ছয়শ টাকা। এক্ষেত্রে মালিকরা চালকের দক্ষতার বাছ-বিচারের প্রয়োজনবোধ করেন না; কেবল যথাসময়ে গাড়ি, গাড়ির চাবি আর দৈনিক টাকা পেলেই হয়। চালকের সঙ্গে মালিকের অসচেতনতার শিকারে পরিণত হতে হয় সাধারণ যাত্রীদের।

মহাসড়কের জোরারগন্জ হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মো. সরওয়ার দাবী করেন, ‘অবৈধভাবে অবস্থান নেওয়া সিএনজি অটোরিক্শাগুলো উচ্ছেদ করে চলে আসলে তারা আবার জড়ো হয়। কোনভাবেই এদের দমানো যাচ্ছে না।’ এসব অটোরিক্শার কারণে স্বাভাবিক যান চলাচল বাধাগ্রস্থ হয় স্বীকার করেন তিনি।

 রিপোর্ট »রবিবার, ১১ ডিসেম্বার , ২০১১. সময়-৫:২৯ pm | বাংলা- 27 Agrohayon 1418
WEBSBD.NET
রিপোর্ট শেয়ার করুন  »
Share on Facebook!Digg this!Add to del.icio.us!Stumble this!Add to Techorati!Seed Newsvine!Reddit!
EDITOR;ABUL HOSSAIN LITON, DHAKA OFFICE; NAHAR MONZILl,BOX NAGAR,DEMRA,DHAKA.OFFICE;MAHESHPUR,JHENAIDAH,BANGLADESH. Copyright © 2011 » All rights reserved http/shesherkhobor.com, MOB: 8801711245104,Email:shesherkhobor@gmail.com 
☼ Provided By  websbd.net  » System  Designed by HELAL .
GO TOP